শেরপুরে আওয়ামীলীগের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ॥ শহরে উত্তেজনা ,পুলিশের ব্যাপক নিরাপত্তা

সম্পাদক-প্রকাশকঃ মারুফুর রহমান ফকির
সোম, 30.10.2017 - 12:08 PM
Share icon
  স্টাফ রিপোর্টার ॥ শেরপুর জেলা পরিষদের নির্বাচিত সদস্য মোহাম্মদ জাকারিয়া বিষুকে গত ২৩ অক্টোবর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান ও তার সহযোগিদের দ্বারা মার ধোরের অভিযোগকে কেন্দ্র করে গত ১ সপ্তাহ ধরে পাল্টা পাল্টি অভিযোগের বিষয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করে।   এরই ধারাবাহিকতায় ৩০ অক্টোবর সোমবার দুপুর ১২টায় শেরপুর থানা মোড়ে জেলা পরিষদ সদস্য জাকারিয়া বিষুর সভাপতিত্বে নবীনগর মহল্লাবাসী এক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।   এসময় এ সমাবেশে তারা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমানের বিভিন্ন অনিয়ম দুর্নীতির কথা তুলে ধরে বক্তব্য দেন, জেলা আ’লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ারুল হাসান উৎপল, জেলা আ’লীগ ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব দুলাল উদ্দিন, বি.এম এ জেলা শাখার সভাপতি ও জেলা আ’লীগ স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. এম এ বারেক তোতা, জেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক ও পৌরসভার কাউন্সিলর মোঃ নজরুল ইসলাম, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হানিফ উদ্দিন জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি জুনায়েদ নূরানী মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক সোয়েব হাসান সাকিল, শহর ছাত্রলীগের সভাপতি কামরুল হাসান, সমাজ সেবক আব্দুল্লা আল মাসুদ প্রমুখ। প্রতিবাদ সভা পরিচালনা করেন, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারন সম্পাদক আ.স.ম নাছিম কাকন। বক্তাগণ এসময় বলেন আগামী ২৪ ঘণ্টা মধ্যে জেলা পরিষদ সদস্য জাকারিয়া বিষুর দায়ের কৃত মামলাটি এফআইআর হিসেবে গ্রহণ না করলে কঠোর কর্মসূচি গ্রহণের হুশিয়ার দেন।   এদিকে একইদিন জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমানের পক্ষে সচেতন নাগরিক সমাজের উদ্যোগে শেরপুর জেলা শহরের তিনআনী বাজার মোড়ে বিক্ষোভ সমাবেশ আয়োজন করে। এতে করে মানুষের মাঝে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখ দেয়। এসব ঘটনায় পুুলিশের উধর্বতন কর্তৃপক্ষ সকাল থেকেই শহরের আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণ রাখতে বিভিন্ন মোড়ে পুলিশ মোতায়ন করে।   অপরদিকে শেরপুর জেলা পরিষদের সদস্য জাকারিয়া বিষুকে অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে ৩০ অক্টোবর সোমবার দুপুর ১২টায় সচেতন নাগরিক সমাজের আয়োজনে বিক্ষোভ মিছিল ও স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। সকাল ১০টা থেকে বিভিন্ন এলাকা থেকে খন্ড খন্ড মিছিল এসে পৌর শহরের উপকণ্ঠে নতুন বাস টার্মিনালে জমায়েত হয়। পরে সেখানে জনতার উদ্দেশ্যে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান শাস্তিপূর্ণ মিছিল এবং শহর প্রদক্ষিণ করার জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানান। সেখান থেকে মিছিলটি জেলা যুবলীগের সভাপতি ও কামারের চর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান হাবিবের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে গিয়ে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার হাতে পৃথক পৃথক স্মারকলিপি প্রদান করে।   এসময় জেলা প্রশাসক ড. মল্লিক আনোয়ার হোসেন স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। অপরদিকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে স্মারকলিপি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার খালিদ বিন নূর ও অতিরিক্ত সুপার (সদর সার্কেল) মোঃ আমিনুল ইসলাম গ্রহণ করেন। স্মারকলিপি প্রদান শেষে শহরের তিনানী বাজার কলেজ মোড়ে এক প্রতিবাদ সমাবেশের আয়োজন করে।   ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হাবিবুর রহমান হাবিবের সভাপতিত্বে উক্ত সমাবেশে প্রধান অতিথি বক্তব্য রাখেন, সদর উপজেলা পষিদের ভাইস চেয়ারম্যান ও শেরপুর সরকারি কলেজের সাবেক ভিপি বায়েজিদ হাসান। বিশেষ অতিথি ছিলেন, জেলা পষিদের ১নং প্যানেল চেয়ারম্যান এস এম সাব্বির আহাম্মেদ খোকন, ২নং চরশেরপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন সুরুজ, লছমনপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সেলিম মিয়া, শেরপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র তৌহিদুর রহমান বিদ্যুৎ, গাজীরখামার ইউনিয়নে সাবেক চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান, কামারিয়া ইউপি’র সাবেক চেয়ারম্যান নূরে আলম সিদ্দিকী ও উপজেলা কৃষকলীগের সভাপতি হেলাল উদ্দিন প্রমুখ।   বক্তাগণ তাদের বক্তব্য বলেন বর্তমান হুইপ আতিউর রহমান আতিক কে বুলেট নয় ব্যালটের মাধ্যমে আগামী নির্বাচনে জবাব দেওয়া হবে। ইউপি চেয়ারম্যান হাবিব তার বক্তব্যে বলেন, আগামী দিনে ইউপি আতিক যেখানে সভা সমাবেশ করবে আমরাও সেখানে সভা সমাবেশ করবো। এছাড়াও বিষুকে গ্রেফতার না করলে আগামীতে কঠিন কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হবে। যেনতেন ভাবে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান এর নামে বিষোদগার করলে আমরা তার দাঁত ভাঙা জবাব দিবো।  
Share icon